SL3 Framework

Why Do We Learn Programming

আপনাদের জন্য শেষ মোটিভেশন, কমান্ডো ট্রেইনিং এ যাওয়ার পূর্বে সর্বশেষ মোটিভেশন। SL3 Framework টা আপনারা প্রোগ্রামিং এর কমান্ডো ট্রেইনিং হিসেবে নিবেন কি না আমরা জানি না। তবে যারা আমাদের SL3 Program এ জয়েন করবেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাদের ক্ষেত্রে প্রোগ্রামিং এর কমান্ডো ট্রেইনিংই হবে সেই বিষয়ে নিশ্চিত থাকতে পারেন।

SL3 Framework - Programming Means High Salary

আমরা কেন প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ শিখবো কথাটা লিখে গুগলে সার্চ করলে আপনি অসংখ্য আর্টিকেল বা ভিডিও পেয়ে যাবেন। নতুন করে কিছু বলার আছে বলে আমার মনে হয় না। তারপরেও কোনো কিছু না লুকিয়ে কিছু সত্য মোটিভেশন আমরা দিতেই পারি।

High Salary: প্রোগ্রামারদের স্যালারি অন্যান্য জব টাইটেল থেকে সাধারণত একটু বেশিই হয়। যদি আপনি একজন ভালো মাপের প্রোগ্রামার হতে পারেন দেশের ভিতরেও আপনার স্যালারি ছয় ডিজিটে হয়ে যাবে খুব সহজেই। আর যদি বাইরের দেশের কথা চিন্তা করেন তাহলে বাৎসরিক কোটি টাকাও ইনকাম করা কোনো বিষয় না। তবে প্রথমেই স্যালারির দিকে তাকিয়ে এক লাফে কম্পিউটারের সামনে বসে পরার দরকার নেই। ভালো প্রোগ্রামার হওয়ার জন্য দরকার প্রচুর পরিশ্রম করার মানুষিকতা, ধৈর্য্য এবং অধ্যাবসায়। সাধারণ মানুষের মতো জীবন যাপন করে আপনি একজন সাধারণ প্রোগ্রামারও হতে পারবেন না। এক্সট্রা অর্ডিনারি ভাবে চেষ্টা করতে হবে।

Certificate is not Mandatory: একজন ভালো প্রোগ্রামারের ডিমান্ড এত বেশি যে এই ক্ষেত্রে আপনার এডুকেশনাল ব্যাকগ্রাউন্ডও কোনো মানে রাখে না। আপনি ভার্সিটিতে পড়েছেন কি পড়েন নি সেটা কোনো বিষয়ই না। একজন প্রোগ্রামারের একমাত্র পরিচয় হচ্ছে সে একজন প্রোগ্রামার। তবে শুধুমাত্র খুব ভালো প্রোগ্রামারের ক্ষেত্রেই কথাটা প্রযোজ্য।

Work From Anywhere: প্রোগ্রামিং আপনি যে কোনো জায়গায় বসেই করতে পারবেন। কোনো স্পেশিয়াল সেটআপ এর দরকার হবে না। অফিস এনভারনমেন্ট এর দরকার হবে না। শুধুমাত্র কাছে একটা ল্যাপটপ থাকলেই হয়ে গেলো। শুধুমাত্র একটা ল্যাপটপ, আর আপনি লাইফ চেঞ্জিং স্টার্টাপ তৈরি করতে পারবেন। লাইফ চেঞ্জিং সফটওয়্যার তৈরি করতে পারবেন। কোটি কোটি টাকার যন্ত্রপাতির দরকার নেই। এখানে আপনিই সব, আপনার ব্রেইনে থাকা প্রোগ্রামিং এর জ্ঞানই সব। আর এই জ্ঞান কি করতে পারে তা আমরা গুগল, ফেসবুককে দেখলেই কল্পনা করতে পারি।

আরও অসংখ্য কারণ আপনাকে দেওয়া যেতে পারে যে কারণে আপনি প্রোগ্রামিং শিখতে পারেন। আমার মনে হয় প্রত্যেকেরই প্রথম কারণ থাকে টাকা। আর তারপরে ভালোবাসা। প্রোগ্রামিং যদি কেউ একবার বুঝতে পারে তাহলে সে প্রোগ্রামিং কে ভালো না বেসে থাকতেই পারবে না। তবে আবারও একটা কথা আপনাকে মনে করিয়ে দেই কম্পিউটার এবং কম্পিউটার প্রোগ্রামিং এ আপনি যায় করেন না আলটিমেটলি সবই ডেটা। শুধুমাত্র এই ডেটাকে কেন্দ্র করে অসংখ্য জব টাইটেল ক্রিয়েট হয়েছে। চলুন ওয়েব ডেভেলপমেন্ট রিলেটেড কিছু জব টাইটেল দেখে আসা যাক একটু মজা করে -

সারা বিশ্বে কোটি কোটি ওয়েবসাইট, অ্যাপলিকেশন, মাল্টি বিলিয়ন ডলারের টেক কোম্পানি। সবাই কোনো না কোনো ভাবে একটা জিনিসই সেল করছে, আর সেটা হচ্ছে ডেটা। ব্লগ সাইট থেকে শুরু করে সোশ্যাল মিডিয়া, নিউজ পোর্টাল থেকে শুরু করে ইকমার্স যেখানেই আপনি ভিসিট করেন না কেন, চোখের সামনে যা আসবে সবই ডেটা। আর এই ডেটা আপনাকে সঠিক ভাবে, সুন্দর ভাবে দেখানোর জন্য এসেছে হাজার হাজার প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ, হাজার হাজার টেকনোলজি - তৈরি হয়েছে অসংখ্য জব টাইটেল।

একটা সিম্পল ওয়েব সাইটে ভিসিট করলে আমরা সাধারণত চারটা জিনিস দেখতে পাই। ১ HTML - যার কাজ ডেটার একটা স্ট্রাকচার তৈরি করা। ২ CSS - যে স্ট্রাকচারড ডেটার স্টাইল তৈরি করে। ৩ JavaScript - যার কাজ ডেটার সাথে ইন্টারেক্ট করা। আর ৪ নাম্বার যা দেখি সেটা হচ্ছে একচ্যুয়াল ডেটা।

ডেটাকে আপনার সামনে কিভাবে তুলে ধরলে আপনি খুশি হবেন তা নিয়ে রিসার্স করার জন্য আছে UI/UX ডিজাইনারস। আর ডেটাকে একটা স্ট্রাকচার দেওয়ার জন্য আছে ওয়েব ডিজাইনার। ২০২০ সালে এসে কোম্পানি গুলোই শুধু ডেটা তৈরি করে না। আপনি আমি ইউজাররাও প্রতিনিয়ত প্রচুর ডেটা ক্রিয়েট করি। ইউজার যখন ডেটা ক্রিয়েট করে তখন প্রয়োজন হয় প্রচুর ইন্টারেকশন। আর ডেটার সাথে ইন্টারেক্ট করার জন্য আছে ফ্রন্টেন্ড ডেভেলপারস।

এত ডেটা ম্যানিপুলেট করার জন্য, প্রোসেস করে সার্ভারে স্টোর করার জন্য আছে ব্যাকেন্ড ডেভেলপারস, সাথে হাজার হাজার ব্যাকেন্ড টেকনোলজি। ডেটা ভালো ভাবে প্রোসেস করার জন্য দরকার ডেটার সাথে ডেটার কমিউনিকেশন। কমিউনিকেশন যেন কোডিং লেভেলে ভালো হয় সেই জন্য কাজ করছে সফটওয়্যার আর্কিটেক্ট, আর ডেটাবেজেও যেন রিলেশনশিপটা বজায় থাকে এই জন্য কাজ করছে ডেটাবেজ ইঞ্জিনিয়ার। প্রোসেস করা ডেটা পাকাপোক্ত ভাবে স্টোর করে রাখার জন্য কাজ করছে ডাটাবেস অ্যাডমিনিস্ট্রেটর। সে সব সময় ডেটা দেখে শুনে রাখে, CEO চাইলেই চট করে প্রয়োজনীয় ডেটা কুয়েরি করে বের করে ফেলে।

এত ডেটা, সেটা নিয়ে রিসার্স না করলে হয় নাকি? ডেটা রিসার্স করে ব্যবসার গতিপথ নির্ণয়ের কাজ করছে ডেটা সাইন্টিস্টগণ। আর সেই ডেটা নিয়ে ইউজার পূর্বে কি করেছিল এবং ভবিষ্যতে কি করতে পারে সেটা প্রেডিক্ট করায় ব্যস্ত মেশিন লার্নিং এক্সপার্টগণ। ডেটা ক্রিয়েশন, প্রোসেসিং, ম্যানেজিং এর মত বিরক্তিকর কাজ গুলো কিভাবে আটোমেট করা যায় তা নিয়ে ব্যাস্ত আর্টিফিশিয়ালি ইনটেলিজেন্ট ব্যক্তিবর্গ। তারা চাইছে না মানুষ আর কাজ কর্ম করে খাক।

এই ডেটা কিভাবে চুরি করে বিক্রি করে কোটি কোটি ডলার কামানো যায় সেই চিন্তায় ব্যস্ত হ্যাকাররা। আর কোম্পানির মালিকেরা ব্যস্ত কিভাবে তাদের ডেটা হ্যাকারের থেকে লুকিয়ে রাখা যায় সেই চিন্তায়ে। সাইবার সিকিউরিটি দিতে ব্যস্ত কোম্পানির মালিকেরা শেয়ালের কাছে মুরগী বর্গা দেওয়ার মত করে আর একজন হ্যাকারই ধরে নিয়ে আসে তাদের ডেটা বাঁচাতে। এরা আবার সাধারণ হ্যাকার না, মাথায় সাদা টুপি পরা হ্যাকার।

এত মানুষ কাজ করছে যেন আপনি আমি ভালো মত ডেটা গুলো দেখতে পাই। সব কিছু যেন সময় মত প্রোডাকশনে চলে আসে। কিন্তু প্রোডাকশন আর ডেভেলপমেন্টের ভিতরে রয়েছে একটা বিরাট দূরত্ব, যেই দূরত্ব ঘোচাতে এগিয়ে এসেছে ডেভওপ্স ইঞ্জিনিয়ারস। প্রোডাকশন সার্ভারে অ্যাপ্লিকেশনটা ঠিক মত ডেটা দেখাচ্ছে কিনা সেটা মনিটর করার জন্য রয়েছে সিস্টেম অ্যাডমিনিস্ট্রেটর।

এত ভালো সিস্টেম, এত মানুষ কাজ করছে আমরা যেন ডেটা দেখতে পারি এই জন্য, আমরা ভিসিট না করলে হয় নাকি? ভাই রে ভাই এত পরিমাণে এক সাথে এত মানুষ ভিসিট করেছি যে সার্ভারই হ্যাং হয়ে গেছে। কোম্পানি সার্ভার কিনতে কিনতে ফকির হওয়ার আগেই তার দরকার একজন সিস্টেম আর্কিটেক্ট। সিস্টেম আর্কিটেক্ট আমাদের জন্য এমন একটা সিস্টেম মানে সার্ভার ডিজাইন করবে যে কম সার্ভার খরচ করে বেশি মানুষ একই সাথে ডেটা দেখতে পারে।

যাক বাবা ডেটা দেখানোর যন্ত্র প্রস্তুত এবং সব কিছু ঠিক ঠাক। কিন্তু কই? গুগলে সার্চ করলে তো আমার ডেটা দেখা যায় না? গুগলে আমার ডেটা দেখানোর জন্য লাগবে সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন। মানুষের দ্বারে দ্বারে আমার ডেটা পৌঁছে দেবে ডিজিটাল মার্কেটার। কিন্তু ডেটা কই? ওহ ডেটা ক্রিয়েট করার জন্য লাগবে কন্টেন্ট ক্রিয়েটর।

আহ, এবার হয়ত আমরা ডেটা ভালো ভাবে দেখাতে পারবো। ওহ শিট, আমার ডেটা শেষ।

তাহলে নিশ্চয় বুঝতেই পারছেন, একজন প্রোগ্রামার হয়ে আমরা কতো দিকে যেতে পারি। এখানে কিন্তু শুধু একটি মাত্র সেক্টরের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। কিন্তু এই রকম অসংখ্য সেক্টর আপনার জন্য অপেক্ষা করে আছে। আর এই সব সেক্টরের বেসিক রিকুয়ারমেন্ট হচ্ছে প্রোগ্রামিং। একজন ভালো প্রোগ্রামার একটি দেশের অর্থনীতি পরিবর্তন করে ফেলার সামর্থ্য রাখে। তাই প্রথমেই নিজের কাছে প্রতিজ্ঞা বদ্ধ হন যে একজন ভালো প্রোগ্রামার হয়ে উঠবেন। আর তারপরেই ডেভেলপমেন্টের জগতে পা রাখবেন।

Edit this page on GitHub