SL3 Framework

Overview Of Programming Fundamentals

যে কোনো একটা সমস্যা সমাধানের জন্য সুডো কোড সব থেকে ভালো মাধ্যম। কিন্তু ভালো ভাবে সুডো কোড লেখার জন্যও আগে থেকে প্রোগ্রামিং সম্পর্কিত কিছু জ্ঞান থাকা জরুরি। তা না হলে আমি বুঝবো কিভাবে যে কি কি কাজ আমি প্রোগ্রামিং এ করতে পারবো আর কি কি কাজ আমি প্রোগ্রামিং এ করতে পারবো না? বিগিনারদের মধ্যে সচরাচরই একটা কনফিউশন দেখা যায় যে তারা নিশ্চিত হতে পারে না যে তাদের কতটুকু প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ শেখা উচিৎ। ঠিক কতটুকু শেখার পরে তারা সমস্যার সমাধান করতে পারবে?

এই সমস্যার সহজ সমাধান হচ্ছে প্রোগ্রামিং ফান্ডামেন্টালস। সুডো কোড ব্যবহার করে যখন আমরা একটা সমস্যার সমাধান করি তখন যেমন সেই সমস্যাটা আমরা যে কোনো প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ ব্যবহার করেই সমাধান করতে পারি। ঠিক একই ভাবে প্রোগ্রামিং এর যে ফান্ডামেন্টাল কনসেপ্টগুলো আছে সেগুলো কোনো ল্যাংগুয়েজ স্পেসিফিক না। প্রতিটা প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ এই এই কনসেপ্ট গুলো আপনি পাবেন। হতে পারে তার সিনট্যাক্স গুলো একটু ভিন্ন, কিন্তু কাজ একই করবে।

SL3 Framework - Programming Fundamentals

Introducing Character

একদম ছোটো বেলায় ১ থেকে ১০০ পর্যন্ত গুনতে শিখেছিলাম। তারপরে আঙ্গুল গুণে গুণে যোগ বিয়োগ গুণ ভাগ করা শিখেছিলাম। ২০ এর ঘর পর্যন্ত নামতাও মুখস্ত করেছিলাম। বড় হওয়ার পরে আজ পর্যন্ত একটা দিনও এমন যায় নি, যেদিন এই সংখ্যা, যোগ বিয়োগ আমার কাজে লাগে নি। কোনো না কোনো ভাবে ঠিকই কাজে লেগেছে। এবং আমার মনে হয় না, মৃত্যুর পূর্বে এর প্রয়োজন ফুরাবে। এটা হচ্ছে ম্যাথমেটিক্সের ফান্ডামেন্টালস। যেগুলো ছোটো বেলায় শেখানোর জন্য বাবা মা কত আজিব আজিব কাজ করতো।

ম্যাথমেটিক্সের মতো প্রোগ্রামিং এর ও কিছু ফান্ডামেন্টাল কনসেপ্ট আছে। যেগুলোও আপনার কাজে লাগবে ঠিক ততদিন যতদিন আপনি কোড করবেন। এই যে বড় বড় সফটওয়্যার দেখেন না? ফেসবুক, গুগল, মাইক্রোসফটের মতো কোম্পানি তাদের প্রোডাক্ট ডেভেলপ করার জন্য লক্ষ লক্ষ লাইনের কোড লিখে রেখেছে? সব কোড তৈরি হয়েছে এই ফান্ডামেন্টাল কনসেপ্ট গুলো দিয়ে। হুম আমি মানছি, এই টপিক্স বাদেও আরও কিছু অ্যাডভান্সড কনসেপ্ট আছে এখানে। তবে যত বড় ম্যাথম্যাটিক্যাল প্রব্লেমই আপনি সল্ভ করেন না কেন, সেখানে কি ০-৯ বাদে অন্য কোনো সংখ্যা আপনি দেখাতে পারবেন? সফটওয়্যারের ক্ষেত্রে প্রোগ্রামিং ফান্ডামেন্টালসও অনেকটা ম্যাথমেটিক্স এর ০-৯ ডিজিট এর মতো।

এত গুরুত্বপূর্ণ একটা বিষয় তো আর যেমন তেমন ভাবে শেখা যায় না, একটু গুরুত্ব দিয়েই শিখতে হবে। গুরুত্ব দিয়ে শিখবো কিন্তু মজা করে শিখবো। আমরা প্রোগ্রামিং এর ফান্ডামেন্টাল কনসেপ্ট গুলো শিখবো কনভার্সেশনের মাধ্যমে। এখানে অনেক গুলো ক্যারেক্টার থাকবে। প্রত্যেকে প্রত্যেকের জায়গাতে প্রোগ্রামিং শিখছে। একে অন্যের সাথে আলোচনা করছে, আলোচনা করার মাধ্যমে প্রোগ্রামিং শিখছে। তারা সব সময় বাস্তব জীবনের সাথে প্রোগ্রামিং কে মেলানোর চেষ্টা করছে। এই গল্পের মূল চরিত্রে থাকছে তামিম এবং রিয়া। শিক্ষক হিসেবে থাকছে নাঈম। এছাড়াও গল্পের সুবিধার্তে থাকছে আরও কিছু ক্যারেকটার। গল্পে গল্পে কখন আপনি প্রোগ্রামিং ফান্ডামেন্টাল শিখে ফেলবেন তা আপনি বুঝতেও পারবেন না। এই গল্পের মাধ্যমে শুধু প্রোগ্রামিং ফান্ডামেন্টালস না, এর বাইরেও আরও অনেক কিছু আপনি আপনার অজান্তেই শিখে ফেলবেন।

Start Conversation -

প্রেক্ষাপটঃ তামিম এবং রিয়া, দুইজন খালাতো ভাই বোন। দুজনেই SL3 এর অনলাইন প্রোগ্রামে জয়েন করেছে। আজকে তাদের প্রথম লাইভ ক্লাস নাঈম ভাইয়ের সাথে। তারা খুবই উত্তেজিত, অনেক দিন হলো দুজনের মাথাতেই প্রোগ্রামিং এর ভূত চেপেছে। অনলাইনে অনেক প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজের কোর্স করার পরেও যখন কিছু হচ্ছিল না তখন তারা প্রোগ্রামিং শিখতে SL3 Program এই জয়েন করেছে। রাত ৯ টায় ক্লাস, এখন ৮:৩৫ বাজে। রিয়া নিজের উত্তেজনা ঠেকাতে না পেরে তামিমকে ফোন করছে -

তামিমঃ হ্যালো

রিয়াঃ কি রে কি করিস?

তামিমঃ তুই ফোন দেওয়ার আর সময় পাস না? একটু পরে ক্লাস আর তুই এখন আমাকে ফোন দিয়ে জিজ্ঞাসা করিস যে আমি কি করি?

রিয়াঃ একটু পরে যে ক্লাস সেটা তো আমিও জানি। আমার আর তর সইছে না, তাই তোকে ফোন দিলাম সময় কাটানোর জন্য।

তামিমঃ আমারও সেম অবস্থা। আমি সব কিছু গোছগাছ করে রাখছি যেন ক্লাসের সময় ওঠা না লাগে।

রিয়াঃ তুই এখন গোছগাছ করছিস? আমি তো সন্ধ্যায় সব কিছু গুছিয়ে বসে আছি।

তামিমঃ মেয়েরা এই সব কাজে একটু ফাস্ট হয়, প্রোগ্রামিং করার সময় দেখবো তুই কত ফাস্ট।

রিয়াঃ হইছে, আর ভাব মারতে হবে না।

তামিমঃ ওহ শিট! শিট শিট শিট! নো! 😩👿

রিয়াঃ কি হলো?

তামিমঃ লোড শেডিং।

রিয়াঃ ওহ নো, এখন কি করবি? ল্যাপটপে চার্জ আছে?

তামিমঃ ল্যাপটপে তো চার্জ আছে, কিন্তু ইন্টারনেট কয় পাবো? আমার প্রথম ক্লাসই কি মিস যাবে নাকি?

রিয়াঃ ফোনে ইন্টারনেট প্যাক কিনে নে।

তামিমঃ আমার কাছে এক টাকাও নেই, আমাকে কিছু নেট ধার দিবি?

রিয়াঃ উহু, তোকে ধার দিলে সেই টাকা আর ব্যাক পাওয়া যায় না।

তামিমঃ সত্যি বলছি, কালকের ভিতরেই তোকে ফেরত দিয়ে দেবো।

রিয়াঃ উহু, তোর সত্যি কথা আমার জানা আছে।

তামিমঃ প্লিজ, বোন আমার। তুই না আমার বড় আপু? ছোট ভাইয়ের এই টুকু আবদার রাখবি না?

রিয়াঃ আচ্ছা যা, SL3 Program এর কথা তুই আমাকে বলেছিলি। এই জন্য তোকে ২ জিবি নেট গিফট করলাম। যদি SL3 Program ভালো না হয় তাহলে তোর থেকে ৫ জিবি উশুল করবো।

তামিমঃ আচ্ছা বাবা, নিস। এখন আগে তুই ইন্টারনেট প্যাক গিফট কর।

রিয়াঃ ওকে বাবা করছি, একটু সবুর কর।

তামিমঃ 😍

SL3 Framework - Online Class

Continue Conversation (1) -

প্রেক্ষাপটঃ অনলাইন ক্লাসে সবাই উপস্থিত, পরিচয়পত্র নেওয়া শেষে প্রোগ্রামিং ফান্ডামেন্টালস নিয়ে আলোচনা চলছে।

নাঈমঃ ফান্ডামেন্টালস বলতে আসলে কি বোঝায়? কেউ কি বলতে পারবেন?

তামিমঃ ভাইয়া ফান্ডামেন্টাল মানে হচ্ছে মৌলিক।

নাঈমঃ শতভাগ সঠিক উত্তর। প্রোগ্রামিং এর কিছু ফান্ডামেন্টাল বা মৌলিক বিষয়বস্তু আছে। আপনারা প্রোগ্রামিং

ফান্ডামেন্টাল টপিক গুলো কে আমাদের মৌলিক চাহিদা গুলোর সাথে তুলনা করতে পারেন। আমাদের কয়টা মৌলিক বিষয় আছে যেন?

রিয়াঃ ৫ টা, খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা এবং শিক্ষা।

নাঈমঃ ঠিক বলেছেন। আমাদের পাঁচটা মৌলিক চাহিদা আছে। আর সেগুলো হলো - খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা এবং শিক্ষা। এই মৌলিক চাহিদা গুলো পূরণ হলেই যে কোনো মানুষ বেঁচে থাকতে পারে। কি পারে না?

তামিমঃ জি, পারে।

নাঈমঃ বেঁচে থাকার জন্য বড় বড় গাড়ি, বাড়ির দরকার কি দরকার আছে? দামি পোশাক, প্রসাধনী, মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ এসব কিছুর দরকার আছে?

তামিমঃ না দরকার নেই।

নাঈমঃ অবশ্যই দরকার আছে, নাহলে আপনি অনালাইনে ক্লাস করছেন কিভাবে 😂? তবে যদি শুধু বেঁচে থাকায় আমাদের চাহিদা হয় তাহলে মৌলিক চাহিদা পূরণ হলেই আমরা বেঁচে থাকতে পারবো।

রিয়াঃ জি ভাইয়া।

নাঈমঃ আবার চিন্তা করেন, একজন খুব গরীব ব্যক্তি সে দিন শেষে যাই করুক তার মৌলিক চাহিদা পূরণ করায় ব্যস্ত। আবার একজন খুব ধনী ব্যক্তিও কিন্তু দিন শেষে তার মৌলিক চাহিদায় পূরণ করছেন। এর সাথে সাথে তিনি আরও অনেক কিছু করছেন, কিন্তু বেঁচে থাকার জন্য তার মৌলিক চাহিদা গুলো পূরণ করতেই হচ্ছে। একজন ধনী ব্যক্তি তার সকাল বেলার নাস্তা ৫ তারা হোটেল খেতে পারেন, আবার একজন গরীব ব্যক্তি তার সকালের নাস্তাটা টং এর দোকানে একটা রুটি আর কলা খেয়েই সেরে নিতে পারেন। দুই জনের সকালের নাস্তা করার উপায়টা ভিন্ন, কিন্তু চাহিদাটা একদম এক, খুদা নিবারণ করা।

তামিমঃ জি, বুঝতে পারছি। কিন্তু এর সাথে প্রোগ্রামিং এর কি সম্পর্ক ভাইয়া?

নাঈমঃ সম্পর্ক আছে। আমাদের মৌলিক চাহিদার মতো প্রোগ্রামিং এর ও কিছু ফান্ডামেন্টাল কনসেপ্ট আছে। বিভিন্ন প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ এই কনসেপ্ট গুলোকে বিভিন্ন ভাবে তাদের মতো করে সাজিয়ে গুছিয়ে আমাদের সামনে রিপ্রেসেন্ট করছে। কেউ সরাসরি একটা পলিথিনের কাগজে মুড়ানো রুটি হাতে ধরিয়ে দিচ্ছে, আবার কেউ রুটিটাকে হাজার হাজার টাকা দামের প্লেটে সুন্দর ভাবে পরিপাটি করে ডেকোরেট করে রিপ্রেসেন্ট করছে। কিন্তু সব শেষে দুই ভাবেই আপনি রুটিটা খাচ্ছেন। প্লাস্টিকের কাগজ বা দামি ডেকোরেট করা প্লেট খাচ্ছেন না। নাকি প্যাকেট কেউ কেউ খান?

রিয়াঃ না ভাইয়া।

নাঈমঃ না, অনেকে খেতেও পারেন। এতো সাজিয়ে গুছিয়ে দিয়েছে, এমনি এমনি ফেলে দেব? প্যাকেটও একটু খেয়ে দেখি, কেমন স্বাদ? 😂

তামিমঃ না ভাইয়া 😂।

নাঈমঃ প্যাকেট যত সুন্দরই হোক না কেন আমরা প্যাকেট খাই না, খাই খাবার। আপনি যখন প্রোগ্রামিং শিখবেন বলে মনস্থির করবেন তখন কিছু দিনের জন্য ধরে নিবেন যে আপনি এখন কমান্ডো ট্রেইনিং নিতে যাচ্ছেন। সহজ সমাধান বলে এখানে কিছু নেই। একবার কষ্ট করে যদি ট্রেইনিংটা সম্পন্ন করতে পারেন তাহলে সারা জীবন আপনাকে আর কষ্ট করতে হবে না, অন্য রকম একটা সম্মান নিয়ে বাঁচতে পারবেন। যখন কেউ কমান্ডো ট্রেইনিং গ্রহণ করে তখন তার মৌলিক চাহিদা পূরণ হওয়াটায় অনেকে বড় ব্যাপার। কেউ কমান্ডো ট্রেইনিং দেখেছেন? জানেন এখানে কি কি হয়?

তামিমঃ জি ভাইয়া, জানি।

রিয়াঃ আমি কমান্ডো মুভি দেখেছি। অনেক কষ্ট করা লাগে।

নাঈমঃ হুমম। আপনাকেও ধরে নিতে হবে যে এই ট্রেইনিং এর সময় আপনার শুধু মৌলিক চাহিদায় পূরণ করতে হবে। মানে প্রোগ্রামিং ফান্ডামেন্টালস ব্যতীত আপনি আর কোনো কিছুই ব্যবহার করতে পারবেন না।

তামিমঃ 😱

নাঈমঃ দুনিয়াতে যত সমস্যা আছে যা কম্পিউটার এবং প্রোগ্রামিং ব্যবহার করে সমাধান করা যায়, তার সব কিছুই শুধু মাত্র প্রোগ্রামিং এর ফান্ডামেন্টাল কনসেপ্ট গুলো ব্যবহার করেই সমাধান করা যায়।

তামিমঃ যে কোনো ল্যাংগুয়েজ ব্যবহার করে সমাধান করা যায়?

নাঈমঃ ফান্ডামেন্টাল তো সব ল্যাংগুয়েজেই আছে তাই না? এই ক্ষেত্রে প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ আপনাকে মোটেও সাহায্য করবে না। ক্ষুদ্র থেকে ক্ষুদ্রতর সমস্যার সমাধানও আপনাকে মাথা খাটিয়ে বের করতে হবে অল্প কয়েকটা প্রোগ্রামিং কনসেপ্ট ব্যবহার করে। এটাই আপনার ট্রেইনিং, কমান্ড ট্রেইনিং। একজন ভালো সফটওয়্যার সৈনিক হিসেবে গড়ে ওঠার ট্রেইনিং।

রিয়াঃ ভাইয়া আমি যে কোনো ল্যাংগুয়েজ ব্যবহার করে ট্রেইনিং নিতে পারবো।

নাঈমঃ জি পারবেন। ফান্ডামেন্টাল কনসেপ্ট গুলোর বাইরে আরও হাজারটা কনসেপ্ট প্রতিটা প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজেই আছে, যা আপনাকে পথভ্রষ্ট করার চেষ্টা করবে। কিন্তু আপনাকে কোনো ভাবেই পথভ্রষ্ট হওয়া যাবে না। শুধুমাত্র ফান্ডামেন্টাল কনসেপ্ট ওপরেই ফোকাস দিতে হবে।

রিয়াঃ ভাইয়া কত দিন এই ট্রেইনিং নিতে হবে? মানে ফান্ডামেন্টাল কনসেপ্ট নিয়ে চিন্তা করতে হবে?

নাঈমঃ খুব বেশি দিন এই ট্রেইনিং এর দরকার নেই। মাত্র এক মাস যদি আপনি আপনার ব্রেইনকে প্রোগ্রামার হওয়ার এই কমান্ডো ট্রেইনিং দিতে পারেন তাহলেই আপনি একজন ভালো সফটওয়্যার সৈনিক হিসেবে গড়ে ওঠার জন্য প্রস্তুত হয়ে যাবেন।

তামিমঃ ফান্ডামেন্টাল টকিক্স শেখার পরে কি অন্যান্য টপিক্স শেখা যাবে?

নাঈমঃ অবশ্যই যাবে, কেন যাবে না? আপনি যদি কাজ করতে চান তাহলে আপনাকে আরও অনেক কিছু শিখতে হবে। কিন্তু আমাদের একটা কমন সমস্যা হচ্ছে আমরা বর্তমান ভুলে ভবিষ্যতের চিন্তায় মগ্ন থাকি।

রিয়াঃ ভাইয়া, কথাটা ভালো ভাবে বুঝতে পারি নি।

নাঈমঃ এই যে তামিম সাহেবকে দেখেন, ওনার আগামী এক মাসের প্লান কিন্তু রেডি। আগামী একমাস আপনাদের কাজ প্রোগ্রামিং ফান্ডামেন্টালস নিয়ে চিন্তা করা। কিভাবে এই এক মাসে ফান্ডামেন্টাল কনসেপ্ট বুঝতে হবে সেটা নিয়ে প্লান পরিকল্পনা না করে উনি তারপরের প্লান পরিকল্পনায় ব্যস্ত।

তামিমঃ না ভাইয়া, আমি সেটা বুঝাতে চাই নি।

নাঈমঃ আমি জানি আপনি সেটা বোঝাতে চাননি। অনেক উত্তেজনা কাজ করছে ভিতরে। কিন্তু ভাইয়া কিছু কিছু সময় এই উত্তেজনায় আপনার সর্বোচ্চ ক্ষতি বয়ে আনতে পারে।

তামিমঃ সরি ভাইয়া।

নাঈমঃ সরি বলার কিছু নেই এখানে। আপনি যদি এই একমাস সঠিক ভাবে পার করতে না পারেন, অ্যাডভানসড বিষয় নিয়ে যখন আপনি কাজ করতে যাবেন, ঘুরে ফিরে আপনাকে এখানেই আবার আসতে হবে। তার থেকে ভালো না যে এক মাস সময় পুরোটা দিয়ে একবারে ভালো করে বিষয় গুলো বুঝেই সামনে আগালেন।

তামিমঃ জি ভাইয়া। আগামী এক মাস আপনি যা বলবেন তাই করবো।

নাঈমঃ SL3 Program এ যখন জয়েন করেছেন, তখন তাছাড়া তো আর কোনো উপায়ও নেই। আপনাদের পুরো দায়িত্ব তো এখন আমার। প্রথমে সবার সাথে ফান্ডামেন্টাল শিখি, এর পরে আরও অনেক অ্যাডভান্সড বিষয় বস্তু আছে সেগুলোও শিখবো

তামিমঃ জি ভাইয়া।

রিয়াঃ ভাইয়া, ফান্ডামেন্টাল বিষয় গুলো কি কি?

নাঈমঃ অল্প কয়েকটা কনসেপ্ট, যেগুলো না হলেই না। একটা ক্ষুদ্রতর প্রোগ্রাম লিখতে গেলেও এই বিষয় গুলোই বার বাড় ঘুরে ফিরে সামনে আসে। যেমন - Variables, Operators, Conditions, Loops, Arrays, Functions and Statements.

তামিমঃ মাত্র এই কয়টা বিষয়? এতো আমি ২ দিনে শিখে ফেলবো।

নাঈমঃ হুমম, যে কেউ চাইলেই এই বিষয় গুলো ২-৩ দিনে শিখে ফেলতে পারে। কিন্তু সেই শেখাটা যদি কাজে লাগাতে চান তাহলে কোনো দিনও আপনি এত তাড়াতাড়ি শিখতে পারবেন না।

তামিমঃ ভাইয়া, এই গুলো আমি এর আগে দেখেছি। এর সিনট্যাক্স গুলো আমি অলরেডি জানি।

নাঈমঃ হা হা, কে বলেছে যে এগুলোর সিনট্যাক্স আপনাকে শিখতে হবে?

তামিমঃ তাহলে? সিনট্যাক্স না জানলে কোড করবো কিভাবে?

নাঈমঃ কে বলেছে যে আপনাকে কোড করতে হবে?

তামিমঃ 😱 ভাইয়া আপনার কথা ঠিক বুঝতে পারছি না।

নাঈমঃ এই টার্মস গুলোর অন্তর্নিহিত বিষয় বস্তু বুঝতে হবে। কি কেন এবং কিভাবে সেটা খুঁজে বের করতে হবে। বাস্তব জীবনে আপনি কোথায় এই বিষয় গুলো দেখতে পান তা নিয়ে প্রতিটা বিষয়ের ওপরের আর্টিকেল লিখতে হবে। কম করে হলেও ২০ টা করে বাস্তব জীবনের সাথে মিল রেখে উদাহরণ খুঁজে বের করে জমা দিতে হবে। সাথে নিজের উদাহরণ গুলো যুক্তি সহকারে ব্যাখ্যা করিতে হবে।

তামিমঃ 😱

রিয়াঃ 😱

রিয়াঃ এই গুলো কি সবাইকে করতে হবে?

নাঈমঃ এই কমান্ডো ট্রেইনিং সবার জন্য। নিজেরা নিজেদের ভিতরে দুই জন করে করে পেয়ার প্রোগ্রামিং করবেন। মাঝে মাঝে গ্রুপ আড্ডা দিবেন। কিন্তু কারোর এক্সাম্পলের সাথে কারোর এক্সাম্পল যেন কোনো ভাবেই মিলে না যায়। তাহলে দুই জনের এক্সাম্পলই বাদ। এটা কমান্ডো ট্রেইনিং, প্রোগ্রামার হওয়ার কমান্ডো ট্রেইনিং। রুলস রেগুলেশন একটু বেশিই থাকবে।

তামিমঃ ভাইয়া আমরা প্রব্লেম সল্ভ করবো না?

নাঈমঃ তামিম সাহেব আপনার বর্তমান অবস্থা কেমন জানেন?

তামিমঃ কেমন ভাইয়া?

নাঈমঃ ধরুন খুব জোরে বাইক চলছে, আপনি বাইকের পিছনে বসে আছেন। ড্রাইভার হঠাত করে জোরে ব্রেক করলো। ড্রাইভার বাইক দুটোই থেমে গেলো। কিন্তু আপনি ড্রাইভারকে ঠেলে বাইরে বের হয়ে যেতে চাইছেন।

তামিমঃ সরি ভাইয়া।

নাঈমঃ প্রব্লেম সল্ভ করার থেকে কঠিন কাজ হচ্ছে প্রব্লেম ফাইন্ড করে বের করা। একজন সাধারণ প্রোগ্রামার প্রব্লেম বলে দিলে সেটা সল্ভ করতে পারে। কিন্তু একজন অসাধারণ প্রোগ্রামার যে কোনো জায়গা থেকে প্রব্লেম বের করে নিয়ে আসতে পারে। শুধু নিয়েই আসতে পারে না, তার সল্যুশনও বের করতে পারে।

তামিমঃ জি ভাইয়া বুঝতে পেরেছি।

নাঈমঃ কি বুঝতে পেরেছেন?

তামিমঃ শুধু প্রব্লেম সল্ভার হলে হবে না, প্রব্লেম ফাইন্ডারও হতে হবে। সমাধান করার পূর্বে সমস্যাটাও আমাকেই খুঁজে বের করতে হবে।

নাঈমঃ ভেরি গুড, আপনি খুব অল্পতেই সব কিছু বুঝতে পারেন।

নাঈমঃ তাহলে ভাইয়ারা আজকের মতো ক্লাস এখানেই শেষ। আগামী দিন থেকে আমরা প্রোগ্রামিং এর ফান্ডামেন্টাল বিষয় গুলো অন্যরকম ভাবে শেখার চেষ্টা করবো।

রিয়াঃ ওকে ভাইয়া, বাই।

তামিমঃ গুড বাই ভাইয়া, ভালো থাকবেন।

সবাইঃ ভালো থাকবেন ভাইয়া।

নাঈমঃ আপনারা সবাইও ভালো থাকবেন। বিদায়।

প্রতিটা ফান্ডামেন্টাল বিষয় সম্পর্কে আমরা একটা ওভারভিউ দেওয়ার চেষ্টা করেছি। আমাদের বর্ণনা গুলো কোনো প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ কেন্দ্রিক না করে সুডো কোড কেন্দ্রিক করার চেষ্টা করেছি যেন আপনি আপনার পছন্দের প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজের সাথে বিষয় গুলোর একটা সম্পর্ক স্থাপন করতে পারেন। আমরা চেষ্টা করেছি গল্পের মাধ্যমে বাস্তব জীবন থেকে প্রোগ্রামিং ফান্ডামেন্টাল বিষয় গুলোকে উপস্থাপন করতে। প্রতিটা লেখায় অনেক বড় বড়, প্রচুর উদাহরণ রয়েছে। যেন আপনারা বোর ফিল না করেন এই জন্যই বিভিন্ন ভাবে আপনাদের কে মজা দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে।

Edit this page on GitHub